কাজের ফাঁকে একটু ব্যায়াম, সুস্থতা অনেকখানি

২৮ জুন, ২০১৯   |   thepeoplesnews24

সংগৃহীত

অনলাইন ডেস্ক:

অফিসের কাজ করতে করতে হাঁপিয়ে ওঠাটা খুবই স্বাভাবিক। একটানা কাজ করলে মাথা ব্যথা থেকে শুরু করে হতে পারে আরও নানা রকম সমস্যা। শারীরিক সমস্যার পাশাপাশি মানসিক নানা সমস্যাতেও পড়তে পারেন একটানা কম্পিউটার ব্যবহার করার ফলে। তবে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে এমন কিছু ব্যায়াম আছে যা করলে খুব সহজেই মুক্তি পাওয়া যায় এইসব শারীরিক এবং মানসিক সমস্যা থেকে। কাজের ফাঁকে ফাঁকে কয়েক মিনিটের বিরতি দিলে এই সমস্যা অনেকখানিই কমে যায়।  চলুন জেনে নেওয়া যাক আর কী কী উপায়ে এই ধরনের সমস্যা থেকে মুক্ত থাকা যায়।

 

ঘাড় :

দীর্ঘক্ষণ কম্পিউটার স্ক্রিনের দিকে ঝুঁকে কাজ করলে ঘাড়ে ব্যথা হতে পারে। ধীরে ধীরে বাড়তে পারে এই যন্ত্রণা। এর থেকে মুক্তি দিতে পারে ঘাড়ের স্ট্রেচিং এবং চিন টাক নামক দুটি উপায়।

স্ট্রেচিং করার জন্য খুব বেশি কিছু করার দরকার নেই। এটি চেয়ারে বসেই করতে পারবেন। প্রথমে আপনার ঘাড়টা ডান দিকে কাত করতে হবে। এরপর ডান হাত দিয়ে মাথাটা আলতো করে ডান দিকে টান দিন। একইভাবে বাম দিকেও টান দিন। দুই থেকে তিনবার করে এমন করলে ঘাড়ের পেশি দীর্ঘ হয়ে ওঠবে এবং মিলবে আরাম।

চিন টাক করাটা আরো সহজ। থুতনিতে চাপ দিয়ে আস্তে আস্তে ঘাড়টাকে পেছনের দিকে নিয়ে যান। ভালো মতো হেলিয়ে দিন। এবার আবার সামনে নিয়ে আসুন। এভাবে কয়েকবার করলে দেখবেন আরাম পাবেন।

কাঁধ :

দীর্ঘ সময় ঝুঁকে কাজ করলে কাঁধে বেশ ব্যথা অনুভূত হতে পারে। ভারি কিছু বহন করলেও এমনটি হতে পারে। এই অবস্থায় ঘাড় বেশি ঘোরানো যায় না। এটিকে বলা হয় ফ্রোজেন শোল্ডার। এটি থেকে মুক্ত থাকতেও খুব বেশি কিছু করতে হবে না।

একটি উপায় হচ্ছে, প্রথমেই ডান হাত বুকের কাছে আড়াআড়ি নিয়ে আসুন। এরপর বা হাত দিয়ে ডান হাতের কনুইয়ে চাপ দিন। দশ সেকেন্ডে বার তিনেক এমন করলে খুব সহজেই আরাম পাওয়া যায়।

আরেকটি উপায় হচ্ছে পেশির জোর বাড়ানোর ব্যায়াম। পানি ভর্তি এক লিটারের একটি বোতল নিন। এবার ডান হাতে বোতলটি রেখে আর্ম্পিটের কাছে চেপে রাখুন। এইবার হাতের কনুইটাকে ভেঙে হাতটাকে বাইরের দিকে ঘোরান। বার কয়েক করলেই মুক্তি মিলবে কাঁধের যন্ত্রণা থেকে। সেই সাথে বাড়বে আপনার পেশির জোরও।

কোমর :

ডেস্কে বসে দীর্ঘক্ষণ কাজ করলে শারীরিক নানান সমস্যার কথা ভুলে যাই আমরা। বিশেষ করে এর ফলে মেরুদণ্ডের যে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে তা মনেই থাকে না কারও। এছাড়া আরও নানা রকম সমস্যা হতে পারে। এ থেকে মুক্তি পেতে ফিগারফোর স্ট্রেচ এবং হ্যামস্ট্রিং স্ট্রেচ মানলেই হবে।

এক পা আর একটি পায়ের ওপরে তুলে দিয়ে চেয়ারের উপর বসলে ইংরেজি চার সংখ্যার মতো দেখতে হয়। এভাবে বসে শরীরটাকে সামনের দিকে ঝুঁকিয়ে নিন। লক্ষ্য রাখতে হবে, মেরুদণ্ড যেন টানটান থাকে। এতে হিপের অংশে টান পড়ায় হিপের পেশি স্ট্রেচও হবে। দুই পায়ে দশ সেকেন্ড করে তিন বার করে করলেই মিলবে আরাম।

আগের মতোই বসতে হবে এক্ষেত্রে। তবে একটি পা সামনের দিকে সোজা করে ছড়িয়ে হবে। অর্থাৎ বাঁ হাটু ভাঁজ থাকলে ডান পা ছড়িয়ে রাখতে হবে। এতে করে হিপের হ্যামস্ট্রিং বেশ পেশিতে টান পড়বে। দুপায়ে তিন বার করতে হবে এই ব্যায়াম। এতে কোমরে বেশ আরাম অনুভূত হবে।






নামাজের সময়সূচি

বুধবার, ২৪ জুলাই, ২০১৯
ফজর ৪:২৬
জোহর ১১:৫৬
আসর ৪:৪১
মাগরিব ৬:০৯
ইশা ৭:২০
সূর্যাস্ত : ৬:০৯সূর্যোদয় : ৫:৪৩