যেন বাতির নিচে অন্ধকার

০৬ মে, ২০১৯   |   thepeoplesnews24

ছবি নিজস্ব

কাওসার আজম:

সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানা সদর হতে এক থেকে দেড় কিলোমিটারের মধ্যে অবস্থিত একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। নাম বাসুদেবকোল দক্ষিণপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।


রায়গঞ্জ উপজেলার অধীন এই স্কুলটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ১৯৯০ সালে। কিন্তু, এই স্কুলটিতে কোনো মাঠ নেই, নেই শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার ব্যবস্থা।

পুকুড়পাড়ে স্কুলটির একমাত্র একাডেমিক ভবণটি যেখানে রয়েছে সেটি খাস জায়গায়। আর স্কুলের নামের যে এক বিঘা জমি সেটি বিলীন হয়ে গেছে পুকুড়ের মধ্যে।

গ্রামের মধ্যে দিয়ে যাওয়া রাস্তা থেকে স্কুলে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের যেতে হয় সরু পুকুরপাড় দিয়ে। বৃষ্টির দিনে শিক্ষার্থীরা দূর্ঘটনার শিকার হন।

থানা সদর লাগোয়া এই স্কুলটির অবস্থান। কিন্তু, দেখে মনে হবে একেবারেই অজোপাড়া গায়ে। যদিও এখন অজোপাড়া গায়েও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এমন করুন অবস্থা চোখে পড়ে না সচরাচর। 

বাসুদেবকোল গ্রামের মধ্যেই  মৌজা) সলঙ্গা অনার্স কলেজ, সলঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়, সলঙ্গা মহিলা কলেজ, সলঙ্গা মহিলা দাখিল মাদরাসা ও বাসুদেবকোল শ্রীরামের পাড়া দাখিল মাদরাসাসহ আরো কিছু ভাল প্রতিষ্ঠান রয়েছে। সলঙ্গা বাজারের অধিকাংশ এলাকা এই বাসুদেবকোল মৌজার মধ্যেই। থানা সদর সংলগ্ন হওয়া সত্ত্বেও বাসুদেবকোল দক্ষিণপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টির এই করুণ অবস্থা যেন বাতির নিচে অন্ধকার। 

৩৩ শতাংশ জমি এবং আরো কিছু খাস জায়গা নিয়ে স্কুলটি ১৯৯০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে (২০১৩) স্কুলটি সরকারীকরণ হয়। সম্প্রতি স্কুলে গিয়ে দেখা যায়, পুকুরপাড়ের উপর চার রুমের একতলাবিশিষ্ট একটি একাডেমিক ভবণ। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের অর্থায়নে ১৯৯৩-৯৪ অর্থবছওে এই ভবণটি নির্মাণ করা হয়। ভবণটিতে ৩ টি ক্লাসরুম ও একটি  (ছোট) শিক্ষকরুম রয়েছে। ক্লাসরুম ও বারান্দার ছাদের পলেস্তারা খসে পড়ছে। 

স্কুলের শিক্ষার্থীদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, মাঠ না থাকার কারণে তারা কোনো ধরনের খেলাধুলায় অংশ নিতে পারে না। মাঠ পুকুরে বিলীন হয়ে গেছে। স্কুলের টিউবয়েলটিও পুকুরের মধ্যে বিলীনের পথে। টিফিনের সময় বা অন্য সময় শিক্ষার্থীদের অনেকেই পুকুরের মধ্যে পিচলে পড়ে যায়। 

স্কুলের শিক্ষকসহ অভিভাবকদেও সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সরকারি এ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী সংখ্যা ১৪০ জন। শিক্ষক ৫ জন। স্কুলটি পুকুরপাড়ে অবস্থিত। ভবণের দুইপাশে পুকুর। শিশু-কিশোররা যেকোনো মূহূর্তে পুকুরের মধ্যে পড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। সরকার যেখানে খেলাধুলাকে উৎসাহিত করছে, সেখানে মাঠ না থাকার কারণে ফুটবল, ক্রিকেটসহ সব ধরনের খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বাসুদেবকোল দক্ষিণপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এমনকি সব শিক্ষার্থী মিলে একসঙ্গেম জাতীয় সঙ্গীত গেয়ে পতাকা উত্তোলনও সেইভাবে হয় না। স্কুলের সামনে জায়গা না থাকায় শিক্ষকদের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করতে হয়। এই স্কুলে শিক্ষার্থী সংখ্যা কম হওয়ার পেছনে মাঠ না থাকা ও স্কুলে যাওয়ার রাস্তা না থাকা অন্যতম কারণ বলে জানা যায়। 

স্কুলের শারীরিক শিক্ষক মো. শহিদুল ইসলাম। তিনি বলেন, স্কুলটির ভবন যেখানে আছে সেটি খাস জায়গা। আর স্কুলের ৩৩ শতাংশ জায়গা পুকুরে বিলীন হয়ে গেছে। মাঠ না থাকায় শিক্ষার্থীদের খেলাধুলা করানো যায় না। অনেক কষ্ট করে জাতীয় সঙ্গীত গাইতে হয়। তাছাড়া স্কুলে যাওয়ার রাস্তা নেই, পুকুরের সরু পাড় দিয়েই যেতে হয়। বছরে একবার শিক্ষার্থীদের নিয়ে সলঙ্গা স্কুল বা কলেজ মাঠে খেলাধুলা করানো হয়। 

বর্তমান সরকার শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়ন ও খেলাধুলাকে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে। বাসুদেবকোল দক্ষিণপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টির মাঠ ভরাট করে খেলাধুলা ও শরীর চর্চার ব্যবস্থা, স্কুল পর্যন্ত রাস্তা তৈরি এবং নতুন একাডেমিক ভবণ নির্মাণ করে সরকারের সংশ্লিষ্ট মহল শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ সৃষ্টি করবে বলে স্থানীয়দের প্রত্যাশা। 

 

লেখক : কল্যাণ সম্পাদক-ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ)

  প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক- ঢাকাস্থ সিরাজগঞ্জ সাংবাদিক সমিতি 






নামাজের সময়সূচি

রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯
ফজর ৪:২৬
জোহর ১১:৫৬
আসর ৪:৪১
মাগরিব ৬:০৯
ইশা ৭:২০
সূর্যাস্ত : ৬:০৯সূর্যোদয় : ৫:৪৩