কামারখন্দে ব্লাস্ট রোগে জমির ধানের ক্ষতি, থামছে না কৃষকের কান্না

০৫ মে, ২০১৯   |   thepeoplesnews24

ছবি নিজস্ব


কামারখন্দ( সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
সিরাজগঞ্জ কামারখন্দ উপজেলায় কৃষি অফিসের অবহেলায় ব্লাস্ট রোগে জমির ধান পুড়ে থামছে না কৃষকের কান্না। কৃষি বিভাগের মাঠ পর্যায়ের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তাদের দায়িত্ব অবহেলার কারণে কামারখন্দ উপজেলার প্রান্তিক চাষীরা তাদের প্রয়োজনীয় কৃষি সেবা না পাওয়ার কারণে তাদের ধানে ব্লাস্ট রোগ হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন উপজেলা ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকেরা।



গ্রাম পর্যায়ে সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, সেবা প্রাপ্তি দূরে থাক বেশিরভাগ কৃষকই উপ- সহকারি কৃষি কর্মকর্তাদের চেনেনা। তাদের সেবা পান না।

আবার কিছু কৃষক সহকারী কৃষি অফিসারকে চিনলেও তাদের টেনে এনে সেবা নিতে হয়। ইচ্ছাকৃতভাবে তারা কৃষকদের সেবা দেন না।
মো. নজরুল ইসলাম জানান, ৩বিঘা জমি চাষ করেছি তার ভিতরে দেড় বিঘা ব্লাস্ট রোগের কারণে নষ্ট হয়েছে। ওই কৃষক আরো জানান, আমি কৃষি অফিসের সাথে ধানের এই বিষয়ে কথা বলেছিলাম। সে আমাদের একটা তালিকা দিয়েছিলো, তালিকা অনুযায়ী কাজ করার ফলেও ধানের ক্ষতি থেকে রক্ষা পাইনি। আগে থেকেই যদি তারা মাঠে এসে দেখতো তাহলে এই ক্ষতিটা আর হতো না। তাদেরকে টেনে নিয়ে আসলে দেখে, দেখার পর ঔষধ লিখে দিয়ে চলে যায়। তারপর আর খবর থাকে না।
আরেক কৃষক মো. কালাচাদ মন্ডল আক্ষেপ করে বলেন, আমাদের দেখার কেউ নেই, আমাদের ক্ষেতের নষ্ট হয়ে গেছে। তারপর কোনো কৃষি অফিসার দেখলো না জমিগুলো কি অবস্থা? আমরা কার কাছে যাবো। মনের দুঃখ কষ্ট নিয়েই পড়ে থাকি।
ওয়াহাব আলী সরকার নামে এক কৃষক বলেন, ধানের অবস্থা দেখে ক্ষেত পুড়ে ফেলতে ইচ্ছে করে,
ময়নুল হক নামে আরেক কৃষক জানান, ধানের অবস্থা ভালো না,ধানের শীষ মরে সাদা হয়ে গেছে, ভিতরে চাউল নাই, নিচে ধানের গাছ কালো দেখা যায় কিন্তু উপরের অংশ সাদা। কৃষকদের তথ্য অনুযায়ী এবার কামারখন্দ উপজেলার হায়দারপুর, কাজিপুরা, জয়েন বড়ধুল, হাটবড়ধুল, বিয়ারা, বাড়াকান্দি, গোপালপুর রসুলপুরসহ বেশ কয়েকটি গ্রামে ব্লাস্ট রোগে ধানের ক্ষতি হয়েছে প্রায় ৩০০- ৩৫০বিঘা।
এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আনোয়ার সাদাত জানান, ব্লাস্ট রোগের কারণে নষ্ট হয়নি। আপনি আসেন আপনাকে নিয়ে মাঠে যাবো কোন জায়গায় নষ্ট হয়েছে দেখবো। কৃষি অফিসারদের চেনেনা এসব বলে লাভ নাই। চেনেনা এটা যদি হয়ে থাকে দূভার্গ্যক্রম। মাঠ পর্যায়ে যারা কৃষি কাজ করে তাদেরকে যেমন কৃষি অফিসারদেরকে চিনতে হবে ঠিক মাঠ পর্যায়ে অফিসারদের কেউ কৃষকদের চিনতে হবে।

 






নামাজের সময়সূচি

রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯
ফজর ৪:২৬
জোহর ১১:৫৬
আসর ৪:৪১
মাগরিব ৬:০৯
ইশা ৭:২০
সূর্যাস্ত : ৬:০৯সূর্যোদয় : ৫:৪৩