শুক্রবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং, সন্ধ্যা ৬:৪৭
রিপোর্টারের নাম
  • আপডেটের সময়ঃ November, 22, 2019, 3:20 pm
  • 23 বার দেখা হয়েছে

অনলাইন ডেস্ক:
জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রয়াত এইচ এম এরশাদের পুত্র এরিক এরশাদকে নিয়ে চলছে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ। অভিযোগ করেছেন এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা ও এরশাদের ছোট ভাই পার্টির বর্তমান চেয়ারম্যান জিএম কাদের। সপ্তাহখানেক ধরে চাচা জিএম কাদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করছেন এরিক এরশাদও।

শুক্রবার (২২ নভেম্বর) সন্ধ্যায় রাজধানীর বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এরিক। তিনি বলেন, আমার সম্পদের ওপর চাচার লোভ রয়েছে। আমরা (এরিক ও বিদিশা) ভয়ে বাসা থেকে বের হতে পারছি না। বাসা থেকে বের হলে আর প্রবেশ করতে পারব কিনা, এমন ভয় পাচ্ছি।

এরিক জানান, তিনি তার প্রয়োজনেই মা বিদিশাকে বাসায় ডেকেছেন। বিদিশা নিজ ইচ্ছায় প্রেসিডেন্ট পার্কে প্রবেশ করেননি।

তিনি বলেন, আমি মাকে ফোন করে বলেছি, আমার অসুবিধা হচ্ছে, ঠিকমতো খাওয়া-দাওয়া করতে পারছি না। এজন্য মা কিছু রান্না করে এনেছেন। আমি তাকে এখানে থাকতে বলেছি। মৃত্যুর আগে বাবা আমাকে বলে গেছেন, কোনোভাবে তোমার মাকে কষ্ট দিও না। মায়ের পায়ের নিচে বেহেশত। রাজনৈতিক কারণে আমি তোমার মাকে অনেক কষ্ট দিয়েছি। তুমি আর নতুন করে কোনো কষ্ট দিও না।

এরিক বলেন, আমার চাচা জিএম কাদের বলেছেন, বল প্রয়োগ করে মা এখানে এসেছেন। কিন্তু এটা ভিত্তিহীন।

সংবাদ সম্মেলনে বিদিশা এরশাদ বলেন, আমি ঠিকানা পরিবর্তনের জন্য এখানে আসিনি। জাতীয় পার্টির অনেকে বলছেন- আমি এরিকের বাসায় কেন? আমি সশস্ত্র অবস্থায় এরিকের বাসায় এসেছি বলেও তারা দাবি করছেন। আমি তো আমার সন্তানের জন্য এসেছি। আমি এসে এরিককে জঘন্য অবস্থায় পেয়েছি।

তিনি বলেন, মা হিসেবে আমি আমার সন্তান এরিককে চাই। ওর বাবা যতদিন বেঁচে ছিলেন; আমাকে কোনো চিন্তা করতে হয়নি। তিনি মারা যাওয়ার পর এরিকের সঙ্গে আমাকে যোগাযোগ করতে দেওয়া হয়নি। বিশেষ করে এরিকের চাচা (জিএম কাদের)। তিনি আমার সন্তানের সঙ্গে আমাকে যোগাযোগ করতে মানা করেছেন।

তিনি আরও বলেন, তারা (জিএম কাদের ও অন্যরা) প্রেসিডেন্ট পার্কের ঠিকানা নিয়ে ব্যস্ত। আমার তো পুরো জীবনটাই শেষ। তারা আমার সন্তানের যত্ন নেননি। আমি কিছুতেই আমার বাচ্চার অধিকার ছাড়ব না।
সুত্র: দৈনিক অধিকার

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ পড়ুন