সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:৪৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

নাটোরে সুদের চাপে ও নির্যাতনে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার আত্মহত্যা, গ্রেফতার এক

নাটোর প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৭০ জন দেখেছেন

নাটোরের শহরের ঘোড়াগাছার এলাকার কুখ্যাত সুদ ব্যবসায়ী মর্জিনা বেগমের সুদের চাপ সইতে না পেরে শুধু ৬ নম্বর ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শহরের ঘোড়াগাছা এলাকার মৃত লতিফ দেওয়ানের ছেলে ইমতিয়াজ আহম্মেদ বুলবুল(৪৬) আত্মহত্যার প্ররোচনা ও নির্যাতনের অভিযোগে মর্জিনাসহ ৪ জনকে অভিযুক্ত করে ্মামলা দায়ের করা হয়েছে। সোমবার রাতে মৃত ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুলের স্ত্রী তাছিলিমা লিমা বাদী হয়ে এই মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে মঙ্গলবার আটক মর্জিনার ভাই উত্তর চৌকিরপাড় এলাকার মৃত জলিল গাজীর ছেলে সাদ্দাম গাজীকে আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।

মৃত বুলবুলের পরিবার ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, শহরতলীর ঘোড়াগাছা গ্রামের হোসেন আলীর স্ত্রী কুখ্যাত সুদ কারবারী মর্জিনা বেগমের নিকট থেকে ২০ হাজার টাকা সুদে নেন একই এলাকার স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুল । সুদসহ প্রায় তিনলাখ টাকা পরিশোধ করেন ।তারপরও দুই লাখ টাকা দাবী করে তাকে অত্যাচার চালিয়ে আসছিল। শনিবার রাত ১০ টার দিকে সুদ ব্যবসায়ী মর্জিনা লোকজন দিয়ে তাকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায় । এরপরে উলঙ্গ করে মারপিটে করে দুটি ফাঁকা চেকে দুই লাখ টাকা লিখে স্বাক্ষর নেন এবং ভিডিও করে স্বীকারোক্তি নেয় । মূলত সুদের টাকার চাপ সইতে না পেরে শহরের ঘোড়াগাছা আমহাটি এলাকার মুদি ব্যবসায়ী ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ইমতিয়াজ আহম্মেদ বুলবুল রবিবার ভোরে গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। এ সময় প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধার করে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর তার মৃত্যু হয়। সেখানে ময়নাতদন্ত শেষে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার লাশ নাটোর এনে গাড়ীখানা গোরস্থানে দাফন করা হয় ।

স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ইমতিয়াজ আহম্মেদ বুলবুলের ভাগিনা সোহাগ জানান, মামা মৃত্যুর পূর্বে ব্যক্তিগত ডাইরীতে তিনি সুদ ব্যবসায়ী মর্জিনা বেগমের অত্যাচার নির্যাতনের কথা লিখে গেছেন ।
এ বিষয়ে নাটোর জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগেন যুগ্ম আহবায়ক আহমেদ সেলিম দায়ী ব্যক্তিদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও বিচার দাবি করেন।

এলাকাবাসী জানান, দীর্ঘ দুই যুগের বেশি সময় ধরে সুদের রমরমা কারবার চালিয়ে আসছে শহরতলীর ঘোড়াগাছা গ্রামের হোসেন আলীর স্ত্রী সুদ কারবারী মর্জিনা বেগম ও তার পরিবার। মনিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারের সদস্যদের বিপদের সুযোগ নিয়ে উচ্চ হারে সুদে টাকা দেন মর্জিনা,তাঁর বোন হাসিনা এবং ভাই সাদ্দাম হোসেন। হাজারে মাসে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকায় তারা সুদে টাকা দেয়। সুদের টাকা না দিলেই মর্জিনা তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে মারপিট , অত্যাচার – নির্যাতন চালাতো। এ ভাবে মর্জিনা তিনটি বাড়ি দখল করেছে বলে জানান এলাকাবাসী । সুদ ব্যবসায়ী মর্জিনার অত্যাচারে অনেকেই বাড়িঘর বিক্রি করতে বাধ্য করেছে। অনেকে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে।

নাটোর থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুল মতিন বলেন, সোমবার মর্জিনার ভাই সাদ্দাম হোসেনকে আটক করেছে পুলিশ। পরে আত্মহত্যার প্ররোচনা ও নির্যাতনের অভিযোগে মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আর নিউজ দেখুন
© All rights reserved 2015- 2020 thepeoplesnews24

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্যমন্ত্রনালয়ের নিয়ম মেনে নিবন্ধনের আবেদন কৃত।

Design & Developed By: Limon Kabir
freelancerzone