1. admin@thepeoplesnews24.com : admin :
  2. shohel.jugantor@gmail.com : alamin hosen : alamin hosen
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩৪ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি গঠন সভাপতি আলমগীর-সম্পাদক আকাশ সিরাজগঞ্জে পুলিশ-যুবদল সংঘর্ষ ইউপি নির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দ পেলেন রায়গঞ্জের প্রার্থীরা নাটোরে যুবকের মরদেহ রেখে পালালো উদ্ধারকারীরা নাটোরে জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি গঠন,সভাপতি সৌরভ-সম্পাদক সাব্বির অজ্ঞান করার ইনজেকশন দিতেই মারা গেলেন অন্তঃসত্ত্বা সিরাজগঞ্জে প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছাড়াই চেয়ারম্যান হচ্ছেন ৬ প্রার্থী মানসিক ভারসাম্যহীন তৌহিদুলকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাবনা মানসিক হাসপাতালে পাঠালেন গাইবান্ধা জেলা পুলিশ রাজশাহীর সাংবাদিক তুহিনের পিতার মৃত্যু

গ্রামীন স্বাস্থ্যসেবায় গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখছে কমিউনিটি ক্লিনিক

হাদিউল হৃদয়
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৩৪০ বার দেখা হয়েছে

মহামারি করোনা কালীন সময়ে সিরাজগঞ্জের তাড়াশে কমিউনিটি ক্লিনিক (সিসি) গুলো গ্রামীণ জনসাধারণের স্বাস্থ্য সেবায় গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন ২৫ জন কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি)। বিগত ১০ বছর ধরে তারা একই স্কেলে চাকরি করে আসলেও অদ্যধী তাদের কোন স্কেল পরিবর্তন হয়নি। তবুও জীবনের ঝুকি নিয়ে স্বাস্থ্যসেবাকে জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছেন। এছাড়াও সামন্য সম্মানীভাতায় মাঠ পর্যায়ে স্বাস্থ্য শিক্ষা দিচ্ছেন ১৯৮ জন মাল্টিপারপাস হেলথ ভলান্টিয়ার (এমএইচভি)।

জানা যায়, উপজেলার ৮ টি ই্উনিয়নে ২৫ টি কমিউনিটি ক্লিনিকে ২৫ জন কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি), ২৫ জন স্বাস্থ্য সহকারী (এইচ এ), ২৫ জন পরিবারকল্যাণ সহকারী (এফ ডাবউ এ) এবং ১৯৮ জন মাল্টিপারপাস হেলথ ভলান্টিয়ার (এমএইচভি) প্রায় সাড়ে তিন লাখ মানুষের পাশে থেকে বন্ধুর মতো সেবা প্রদান করে যাচ্ছে। কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে প্রায় ২৭ প্রকার ঔষধ পান বিনা মূল্যে। প্রতিটি কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে মা, নবজাতক ও অসুস্থ্য নারী-পুুরুষ প্রতিদিন গড়ে ৪০-৫০ জন চিকিৎসা ও বিনা মূল্যে ঔষধ নিয়ে থাকেন। কমিউনিটি ক্লিনিকে এমবিবিএস চিকিৎসকের কোন পদ নেই। প্রতিটি ক্লিনিকে তিন জন সেবাকর্মী ও ৮জন ভলান্টিয়ার সংশ্লিষ্ট কমিউনিটি ক্লিনিকের আওতায় জনসাধারণকে সেবা দিয়ে থাকেন। এই সকল সেবাদানকারী কর্মীরা সকাল ৯ টা থেকে বেলা ৩ ঘটিকা পর্যন্ত কমিউনিটি ক্লিনিকে দায়িত¦ পালন করে থাকেন।

উপজেলার তালম ইউনিয়নের উপর সিলেট কমিউনিটি ক্লিনিকে স্বাস্থ্যসেবা নিতে আসা পাড়িল গ্রামের গৃহবধূ সাথী খাতুন (২৫), চাঁদপুর গ্রামের তানজিলা খাতুন (২১) ও কলাকোপা গ্রামের ফরিদা খাতুন (৩৮) বলেন, করোনা কালীন সময়েও এ ক্লিনিক থেকে জ্বর, সর্দি কাশি, নবজাতক, শিশু, কিশোর-কিশোরী, যুবক-যুবতী, গর্ভবতী নারী ও বৃদ্ধ-বৃদ্ধাসহ সবাই আমরা চিকিৎসা সেবা ও বিনামূল্যে ঔষধ পেয়ে থাকি। কমিউনিটি ক্লিনিক আমাদের কাছে হওয়ায় আমরা সহজেই এখান থেকে চিকিৎসা সেবা পাই।

উপর সিলেট কমিউনিটি ক্লিনিকের হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি) আমিনা খাতুন বলেন, এলাকার অসহায়-গবীরসহ সব ধরণের মানুষদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। বিশেষ করে করোনকালীন জ্বর, সর্দি কাশি, গর্ভকালীন ও প্রসূতী মায়ের পুষ্টিসেবা, ডায়রিয়া, ডাইবেটিস এবং উচ্চ রক্তচাপসহ সকল ধরনের রোগী আসে আমরা তাদের সেবা দিয়ে যাচ্ছি।

বর্তমানে প্রতিটি কমিউনিটি ক্লিনিক সংলগ্ন এলাকার ২’শ ৫০ থেকে ৩’শ পরিবারের জন্য ১জন করে মাল্টিপারপাস হেলথ ভোলেন্টিয়ার (এমএইচভি) কর্মরত রয়েছেন। সপ্তাহে দুদিন করে ক্লিনিকে ডিউটি এবং এলাকার গর্ভবতী মা, রোগের তালিকা, খানার সংখ্যা, পরিবারে আয়ের পরিমান ও সদস্য সংখ্যার তথ্য সংগ্রহ করা হয় জানালেন তালম ইউনিয়নের উপরসিলেট কমিউনিটি ক্লিনিকের আওতায় কর্মরত এমএইচভি হাদিউল ইসলাম। এছাড়াও তিনি স্বাস্থ্যসেবাকে জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে এমএইচভিদের স্থায়ী করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সু-সৃষ্টি কামনা করেন।

বাংলাদেশ সিএইচসিপি এসোসিয়েশন তাড়াশ উপজেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক ও শোলাপাড়া কমিউনিটি ক্লিনিকের হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি) ফিরোজ্জামান হিরা, মহামারি করোনাকালেও লাগমহীনভাবে ২ বছর ছুটি ছাড়া স্থাস্থ্যসেবা প্রদান করে আসছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের প্রনোদনা ঘোষণা করলেও আমরা তা পাইনি। এছাড়াও আমাদের সাথে প্রতিটি ক্লিনিকে এমইচভি আছে ৮ জন করে তারাও নিলসভাবে এই করোনাকালী সময়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খানা জরিপ ও বিভিন্ন স্থাস্থ্য শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে। তাদের যে সামন্য সম্মানী ভাতা দেওয়া হয়। মাননীয় সরকারের কাছে আমার আবেদন এমএইচভিদের সম্মানীভাতা বৃদ্ধি করার জন্য।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জামাল মিঞা শোভন বলেন, স্বাস্থ্য সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌছে দিতে সরকার এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন। আর এটা সম্ভব হচ্ছে কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যেমে। কমিউনিটি ক্লিনিকের সাথে সংশ্লিষ্ট লোকজন স্থানীয় গরীব-অসহায় মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

দয়া করে এই পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
©২০১৫ ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
Theme Customized BY Limon Kabir