মঙ্গলবার, ২৬শে মে, ২০২০ ইং, রাত ৩:০৬
রিপোর্টারের নাম
  • আপডেটের সময়ঃ মে, ২৩, ২০২০, ৮:৩৪ অপরাহ্ণ
  • 27 বার দেখা হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক:

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দেশের কৃষক-শ্রমিকসহ সকল সর্বস্তরের জনগনকে জাতীয় কৃষক-শ্রমিক মুক্তি আন্দোলনের পক্ষ থেকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সংগঠনের আহ্বায়ক এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, যুগ্ম আহ্বায়ক মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা ও সমন্বয়ক মো. মহসিন ভুইয়া।



শনিবার (২৩ মে) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে তারা শুভেচ্ছা জানান।



নেতৃবৃন্দ বলেন, মাসব্যাপী রমজানের আত্মশুদ্ধির মহান দীক্ষার মধ্য দিয়ে আসে ঈদুল ফিতরের আনন্দঘন মুহূর্ত। কিন্তু এমন এক সময় আমাদের মাঝে পবিত্র ঈদুল ফিতর উপস্থিত যখন বিশ্বব্যাপী করোনার আঘাতে বাংলাদেশও ক্ষত-বিক্ষত। করোনা সংক্রমণ এবং মৃত্যুতে মানুষ দুর্বিষহ পরিস্থিতি মোকাবিলা করছে।



তারা বলেন, অন্যদিকে করোনা দু:সময়ের মধ্যে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’ এর আঘাতে বাংলাদেশের উপকূলবর্তী এলাকা দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত। তাই ঈদের আনন্দ উদযাপন করা সম্ভব নয়। তবুও দেশের বিদ্যমান ক্রান্তি-লগ্নে সব ভেদাভেদ ভুলে সবাইকে ঈদের আনন্দ নিজেদের ভাগ করে নিতে হবে।



বিত্তবানদের উদ্দেশ্য করে নেতৃত্রয় বলেন, কোনো অসহায় ও দুস্থ শ্রমজীবী মানুষ যেন অভুক্ত না থাকে সেজন্য যারা সচ্ছল ব্যক্তি তারা যেন তাদের পাশে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন, যাতে নিরন্ন, শ্রমজীবী মানুষরাও ঈদের আনন্দের অংশীদার হতে পারে। বর্তমানে করোনা পরিস্থিতির কারনে মানুষের আয়-রোজগার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দরিদ্র ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো অতি কষ্টে দিনাতিপাত করছে। এ অবস্থায় বিত্তবানদের উচিত অসহায়, দরিদ্র আত্মীয়-স্বজন, অধিনস্থ, প্রতিবেশীসহ ক্ষতিগ্রস্ত সকল গরিব-দুঃখী মানুষের সহযোগিতায় এগিয়ে আসা।



তারা বলেন, করোনা ভাইরাসের মহামারিতে এখন বিশ্ব সম্প্রদায়ের মধ্যে বিরাজ করছে নিরানন্দ, ভয় ও আতঙ্ক। এই অদৃশ্য আততায়ী করোনার কবল থেকে মানুষকে রক্ষা করতে আমি কায়মনোবাক্যে মহান রাব্বুল আলামীনের নিকট প্রার্থনা করি।


এই পবিত্র দিনে বাংলাদেশের প্রতিটি গৃহে প্রবাহিত হোক শান্তির অমীয় ধারা। পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিনে আমারা এই কামনা করি।



Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ পড়ুন

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
৩৫,৫৮৫
সুস্থ
৭,৩৩৪
মৃত্যু
৫০১

বিশ্বে

আক্রান্ত
৫,৫৬৭,৪৮৫
সুস্থ
২,৩৫২,৯৭৭
মৃত্যু
৩৪৬,৮৯০