শনিবার, ২৮শে মার্চ, ২০২০ ইং, দুপুর ১:৪৩
রিপোর্টারের নাম
  • আপডেটের সময়ঃ মার্চ, ৩, ২০২০, ১১:৩৭ পূর্বাহ্ণ
  • 57 বার দেখা হয়েছে

অনলাইন ডেস্ক:
পুরো শরীর মাটিতে পোঁতা, মাটির ওপরে রয়েছে কেবল মাথা। সার দিয়ে এভাবেই মাটির গর্তে নিজেদের আবদ্ধ করে রেখেছেন ২১ ব্যক্তি, তাদের মধ্যে আছে পাঁচ নারীও। ভাবনায় আসতে পারে হয়তো কোনো ধর্মীয় আচার বা সামাজিক নিয়ম রক্ষায় এমন কাজ করছেন তারা। কিন্তু না, পেশায় কৃষক এই ব্যক্তিরা অধিকার আদায়ের আন্দোলন হিসেবে এমনটা করছেন। তারা এই আন্দোলনের নাম দিয়েছেন ‘জমিন সমাধি সত্যাগ্রহ’।

জানা যায় ভারতের রাজস্থানের নিন্দর গ্রামের কৃষকদের জমি কেড়ে নিয়েছে জয়পুর ডেভেলপমেন্ট অথরিটি। একটি গৃহনির্মাণ প্রকল্পের জন্য তাদের চাষের জমি কেড়ে নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তার বদলে দিচ্ছে না উপযুক্ত মূল্য। আর তাই উপায় না পেয়ে এমন অভিনব আন্দোলনে নেমেছেন তারা।

প্রতিবাদী এক কৃষকের দাবি, তাদের চাষের জমি দখল করে কোনো সরকারি প্রজেক্ট চলবে না। আর জমি যদি নিতেই হয় তবে সংশোধিত জমি আইন মেনে নিতে হবে এবং উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দিতে হবে সরকারকে।

এর আগে জানুয়ারি মাসে তারা এই জমি সমাধি সত্যাগ্রহ করেছিলেন জমি দখলের প্রতিবাদে। সে সময় ৫০ দিনের মধ্যে তাদের দাবি খতিয়ে দেখার সরকারি আশ্বাসে আন্দোলন স্থগিত করেন তারা। নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরো সরকার থেকে কোনো সাড়া না পেয়ে আবারও একই পদ্ধতিতে আন্দোলন শুরু করেছেন তারা।

নিন্দার বাঁচাও যুব কিষান সমিতির নেতা নগেন্দ্র সিং দেবনাথ বলেন, ‘রবিবার থেকে ২১ জন কৃষক প্রতিবাদে শামিল হয়েছেন। সরকার যদি দাবি না মানে তবে ৫১ জন এভাবেই সমাহিত হবেন। কৃষক সুরক্ষার অধিকার যতক্ষণ না সরকার নিশ্চিত করছে, ততক্ষণ এই আন্দোলন চলবে।’

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের অক্টোবরে জয়পুর ডেভেলপমেন্ট অথরিটির ১ হাজার ৩০০ বিঘা জমি অধিগ্রহণের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নেমেছিলেন কৃষকরা। তাদের মধ্যে কেউ কেউ আমরণ অনশনও করছিলেন।

২০১১ সালে জয়পুর ডেভেলপমেন্ট অথরিটির আওতায় এই গৃহনির্মাণ প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেছিল সরকার। প্রকল্পের আওতায় ১০ হাজার বাড়ি তৈরির কথা ছিল। জমি সমস্যার সমাধান না হওয়ায় সেটি এখনো ঝুলে রয়েছে।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ পড়ুন