সিরাজগঞ্জে কৃষকের সোনার ধানে বাঁসা বেধেছে পাতা মোড়ানো পোকা

০২ নভেম্বর, ২০১৮   |   thepeoplesnews24

ছবি নিজস্ব প্রতিনিধি



এম এ মালেক:

সিরাজগঞ্জ কামারখন্দ উপজেলায় রোপা আমন ধানে পাতা মোড়ানো পোকার আক্রমণে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষক। পোকার আক্রমণে ধানগাছ প্রথমে হলুদ ও পরে শুকিয়ে বাদামি রং ধারণ করছে।


কীটনাশক ছিটিয়েও কোন ফল পাচ্ছে না কৃষকরা। ফসলের মাঠজুড়ে শুধু পোকা আর পোকা।

এদিকে পোকা দমনে বাজারে প্রয়োজনীয় কীটনাশক কৃষক পেলেও তা জমিতে ছিটিয়ে কোন কাজ হচ্ছেনা। যার ফলে হতাশ হয়ে পড়ছেনে কৃষকরা।  

কীটনাশক স্প্রে করার পরও কোন লাভ হচ্ছে
না। তাই আমনের ফলন নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন তারা। তাদের আশঙ্কা, সময় মতো পোকা দমন করতে না পারলে এবার রোপা আমন উৎপাদন ব্যাহত হতে পারে। শুক্রবার (২নভেম্বর) সকালে সরজমিন ঘুরে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে। 

অত্র উপজেলার ভদ্রঘাট ইউনিয়নের হাটগারা গ্রামের কৃষক রুবেল সেখ জানান, তার প্রায় ৮ বিঘা জমিতে পোকা আক্রমণ করেছে। কীটনাশক স্প্রে করেও এই পোকা দমন করা যাচ্ছে না। কৃষি কর্মকর্তাদেরও মাঠে পাওয়া যাচ্ছে না। তাই তিনি শঙ্কায় আছেন যদি ফলন ভাল না হয়, তাহলে পরিবার নিয়ে পথে বসতে হবে তাকে। একই গ্রামের কৃষক আলতাব মন্ডল, আব্দুল হামিদ,সাদ্দাম হোসেন, হযরত আলী,জাফর সেখ ও সুজন জানান,কড়া সুদে ঋন নিয়ে এবার আমন ধান চাষ করেছিলেন। ধান বের হতেনা হতেই পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে। এই পোকা ধান গাছের পাতা খেয়ে বিবর্ণ করে ফেলছে। এদিকে মাঠে পাওয়া যাচ্ছে না কৃষি অফিসের কোন পরামর্শদাতাকে। তাই অনেকটা বাধ্য হয়েই সার বিক্রেতার পরামর্শ অনুযায়ী কীটনাশক স্প্রে করছি। কিন্তু কোন কাজ হচ্ছে না। ধান না হলে কিভাবে সংসার চালাবেন আর বাচ্চাদের পড়ালেখার খরচ যোগাবেন সেই চিন্তায় আছেন তারা। 

কৃষকরা বাড়তি সুদে এ বছর আমন ধানের আবাদ করেছিলেন। কিন্তু সেই ধানে পোকার আক্রমণ দেখা দেয়ায় লোকসানের আশঙ্কায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। এই বিপদের দিনে কৃষি কর্মকর্তারাও মাঠে নেই বলে অভিযোগ করেছেন কৃষকরা। তবে সংশ্লিষ্ট বিভাগ সেই অভিযোগ নাকচ করে বলছেন,কিছু কিছু আমন
ক্ষেতে পাতা মোড়ানো পোকা রোগ দেখা দিয়েছে। বিষয়টি জানার পর আমরা মাঠে গিয়েছিলাম। তবে যে পোকা আক্রমন করেছে তা নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রয়েছে। এই অবস্থা কাটিয়ে উঠতে কৃষকদের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। তার পরও এসব
রোগ-বালাই নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। মাঠ পর্যায়ে কৃষি কর্মকর্তারা কাজ করছেন ও পরামর্শ প্রদান করছেন। 

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়,এ বছর ৫ হাজার ২৭০ হেক্টর জমিতে রোপা আমন ধানের চাষ হয়েছে। এর মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল প্রায় ৫ হাজার ১০০ হেক্টর জমিতে।

এ ব্যাপারে কামারখন্দ উপজলো কৃষি সম্প্রসারণ র্কমর্কতা আনোয়ার সাহাদ জানান,পাতা মোড়ানো পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে আমরা সরজমিনে গিয়েছিলাম। কৃষকদের হতাশা হবার কিছু নেই পোকা দমনে আমরা তৎপর রয়েছি।

 






নামাজের সময়সূচি

সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮
ফজর ৪:২৬
জোহর ১১:৫৬
আসর ৪:৪১
মাগরিব ৬:০৯
ইশা ৭:২০
সূর্যাস্ত : ৬:০৯সূর্যোদয় : ৫:৪৩