মীরসরাই খৈয়াছড়া ঝর্ণায় হাজারো পর্যটকে আনাগোনায় মুখরিত

২৭ আগস্ট, ২০১৮   |   thepeoplesnews24

প্রতিনিধি


সানোয়ারুল ইসলাম রনি, মীরসরাই (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা :
মীরসরাই খৈয়াছড়া ঝর্ণায় হাজারো পর্যটকের আনাগোনায় মুখরিত এখন। প্রতি বছর ঈদকে কেন্দ্র করে হাজারও পর্যটকের ভিড় লেগে থাকে খৈয়াছড়া ঝর্ণায় এর ব্যতিক্রম হয়নি এবারও। সবুজের চাদরে ঢাকা প্রকৃতিকে দেখার এবং সারি সারি পাহাড়ের ওপর দিয়ে মেঘের ভেলা ভেসে বেড়ানোর দৃশ্য ও ঝর্ণা দেখার অপূর্ব সুযোগ। ঝর্ণা দেখার জন্য দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পর্যটকদের এসেছে মীরসরাই খৈয়াছড়া ঝর্ণায়।
মীরসরাই খৈয়াছড়া ঝর্ণা দেখার জন্য পাহাড়ে উওপরের ওঠার পর তার সৌন্দর্য আপনার সমস্থ কষ্ট ভুলিয়ে দিবে। ওপরে উঠলে দেখা মিলবে আরো একটি ধাপের। এর বাম পাশ দিয়ে সামান্য হাঁটলেই দেখা মিলবে অপর তিনটি ধাপের। এতেও যদি আপনার মন না ভরে তাহলে এই তিনটি ধাপের পাশ দিয়ে পাহাড় বেয়ে উঠে যান আরো ওপরে, সেখানে আশপাশের বহুদূর বিস্তিত পাহাড় আর জঙ্গলের অপূর্ব দৃশ্য কিছুক্ষণের জন্য হলেও আপনাকে ভুলিয়ে দেবে আপনার পরিশ্রম আর নিরাপদে নিচে ফিরে যাওয়ার ভাবনার কথা। ঝর্ণায় যাওয়ার রাস্তাটি দারুন মনোমুগ্ধকর। গাড়ির রাস্তা পার হয়ে যখন হাঁটা শুরু করবেন এর চারি পাশের দৃশ্য দেখে আপনি মুগ্ধ হতে বাধ্য হবেন। খানিকক্ষণ উঁচু-নিচু রাস্তা পার হয়ে একসময় এসে পড়বেন পাহাড়ি ঝিরিপথে। এরপরই শুরু হবে আপনার আসল অ্যাডভেঞ্চার। আপনাকে ঝিরি পথ ধরেই এগিয়ে যেতে হবে। কখনো হাঁটুপানিতে পাথরের ওপর দিয়ে হাঁটবেন তো সেই পানিই কখনো কখনো আপনার কোমর ছাড়িয়ে বুক পর্যন্ত উঠে আসবে। আনুমানিক দেড় ঘণ্টার মতো হাটার পর আপনি ঝর্ণার কাছে পৌছে যাবেন। এরপর যখন খৈয়াছড়ার দর্শন পাবেন, তখন বিস্ময়ে অভিভূত হওয়া ছাড়া আর কোনো পথ থাকবে না।


ঈদের ছুটিতে চট্রগ্রাম থেকে গুরতে আসা পূণীমা দাশ ও সাজেদা আক্তার বলেন, এর আগে আমি অনেক ঝর্ণায় গেছি তবে আমার কাছে সব থেকে বেশি ভালো লেগেছে মীরসরাই খৈয়াছড়া ঝর্ণা । এইখানে ঝর্ণার পাশাপাশি চারাপাশে দেখতে অনেক সুন্দর লাগতেছে আর এখান কার পরিবাশেটা অনেক সুন্দর ।